পুরোনোকে না ভাঙলে নতুনের যাত্রাপথ উন্মুক্ত হয়না

প্রকাশিত: ৬:০৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৩০, ২০২১

পুরোনোকে না ভাঙলে নতুনের যাত্রাপথ উন্মুক্ত হয়না
booked.net

পুরোনোকে না ভাঙলে নতুনের যাত্রাপথ উন্মুক্ত হয়না

সম্পাদকীয়..

মানুষের ভাবনা আপেক্ষিক। স্থান-কাল-পাত্র বিবেচনায় মানুষের ভাবনার রূপান্তর ঘটে। সময়ের নিয়মে সময় এগিয়ে যায়। কিন্তু সেই সময়কে ধারণ করে মানুষ তার বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী। সেটা করতে যেয়ে অনেক চড়াই-উতরাই পেরোতে হয় মানুষকে। আর সেখানেই তার ভাবনার জগতগুলো বদলে গিয়ে দ্বান্দ্বিকতায় রকমফের ঘটে। যার ছাপ থাকে ইতিহাসের সত্য ভাষণে। সেইগুলো ধারণ করে আমরা অধুনা সময়ে ভাবনার জায়গাগুলো, নানা অভিধায় ভূষিত করি যেমন ‘সময়ের কণ্ঠস্বর’ ‘সময়ের ভাবনা’ ইত্যাদি ইত্যাদি। সেই ‘সমাচার দর্পণ’ থেকে শুরু করে এই উপমহাদেশে আজ অবধি যা সংবাদপত্রে চর্চিত হয়ে আসছে এভাবেই সময়ের জলছাপে।

সংবাদপত্রের একটি নিজস্ব ভাষাপদ্ধতি ও কণ্ঠস্বর আছে। সেই ভাষা আর কণ্ঠে সে নিত্য বলে যায় সময়ের অসংগতি।

শুধু বলে যাওয়া নয় রীতিমতো দায় নিয়ে তা নৈতিকতায় প্রকাশ করার প্রতিশ্রুতি। যদি তা করতে ব্যর্থ হয় তাহলে সংবাদপত্র তার বস্তুনিষ্ঠতা হারায়।

যেমন ধরা যাক, বাংলা বর্ণমালার সবগুলো বর্ণ ব্যবহার করলেও তা সব সময় ব্যাকরণের নিয়ম মেনে চলতে পারে না। কারণ তা মানতে গেলে সংবাদপত্রের ভাষা এতো জটিল ও দুষ্পাঠ্য হবে, যা পাঠকদের কাছে গ্রহণযোগ্য করা প্রায় অসম্ভব হয়ে উঠবে।

আবার তার সঠিক ব্যবহার না হলে ভাষা নিয়ে বিভ্রম তৈরি হতে পারে। আবার পুরোপুরি তা মানতে গেলে ভাষা এমনই সমাসবদ্ধ হয়ে পড়বে, যার ফলে কখনো কখনো ভাষার অর্থ আবিষ্কার করাও পাঠকদের জন্য দুরূহ হয়ে উঠবে।

তাহলে এই অবস্থায় সংবাদপত্রের ভাষার ব্যবহারে কী করণীয়? বা সংবাদ প্রকাশের নৈতিক অঙ্গীকারের জায়গা থেকে তা মেইনটেইনও বা কিভাবে করা যায়? এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করছে যে সংবাদ প্রকাশ করবে তার মনস্তত্ত্বের উপর। নির্মাণশৈলির সহজবোধ্য ঘটনা প্রবাহের উপর…

ভয়েস অব কুলাউড়া অনলাইন পত্রিকা। বোঝাই যাচ্ছে সেটা কুলাউড়ার কণ্ঠকে ধারণ করার প্রত্যয়ে যাত্রা শুরু করেছে। প্রিন্ট আর অনলাইন দুটো মাধ্যমেই সংবাদের ভাবার্থ একই। এমনকি তার লক্ষের অভীষ্টতাও এক।

সর্বত্র সংবাদের আড়ালের সংবাদ প্রকাশের দৃপ্ত প্রতিশ্রুতি দুটোরই থাকে। আমরা সচেতন পাঠকমাত্রই এগুলো কমবেশি সবাই জানি। সেই প্রকাশের ধরণ আর হৃদয়ের সংকল্প নিয়েই ভয়েজ অব কুলাউড়ার আত্মপ্রকাশ।

কুলাউড়ার প্রান্তিক মানুষের সুখ-দুঃখের পাশাপাশি নাগরিক জীবনের নানা টানাপোড়েনের ঘেরাটোপের চিত্র, প্রবাসে কুলাউড়ার সন্তানদের সংগ্রামের গল্প নিয়ে পথ চলতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ এই অনলাইন পত্রিকাটি।

আপোষ ও দ্বিচারিতার ঊর্ধ্বে উঠে প্রতিটি মুহূর্ত ধারণ করার স্বপ্ন ভয়েজ অব কুলাউড়ার। আর সেই স্বপ্ন নিয়েই ধুলোবালির জলছবি অহর্নিশ আঁকবে এই অনলাইন ভার্সনটি।

আপনাদের সবার সহযোগিতা আর সুচিন্তিত ভাবনার অব্যক্ত কথার প্রকাশ আমাদের প্রেরণা যোগাবে। সেইসাথে আপনাদের গঠনমূলক সমালোচনা আমাদের নৈতিকতার জায়গায় অবিচল রাখতে সাহায্য করবে।

আমরা পুরোনোকে ভাঙতে চাই। কারণ আমরা জানি ‘পুরোনোকে না ভাঙলে নতুনের যাত্রাপথ উন্মুক্ত হয়না’। সবার জন্য শুভকামনা..।

শুভেচ্ছান্তে-

আব্দুল কাইয়ুম মিন্টু, সম্পাদক  ও  নুরুল ইসলাম ইমন, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক

ভয়েস অব কুলাউড়া।